Community Women's Blog

We Stand for Equality, Secularism and Justice


Leave a comment

When Will Attitude towards Women Change?

By Piya Mayenin

Society-made, insurmountable obstacles hinder the progress of gender equality. With one step forward and leaps back the ugly mountain blocks our future unless some real changes are made worldwide. ..Quantitative actions are not turning into qualitative change because of insurmountable obstacles of society. 

 

Why do women have to bang on about Women’s right?  Well, firstly as women they would have experienced inequality and, at some time in their life, they would try to find a reason for those inequalities and solutions. Secondly, the status quo that is harming women, economically and socially has proved to be one that is almost impossible to shift inspite of achievements in equality by society.  Despite achievements of women, worldwide, the inequality mountain stands almost still. In the new era of ‘Trumpism  – when a Man like Donald Trump gets the Presidentship of in the US after making all the despicable comments about women – we need to put down our feet firmly for real quality changes!

Quantitative actions are not turning into qualitative change because of insurmountable obstacles of society. Quantitative changes mean that there are more women working today then say there were in the 1940’s. So does that mean that work around equality by our foremothers is really paying off? Comparators across indicators of qualitative change show that this is not the case. I have put that down, I am sure many many others have too, to a lack of respect for women. This lack of respect, globally, for women is simply from deep rooted ideas of women’s inferior place in society and the economy. This is seen, all over the world, where women are still usually working more and getting paid less than men irrespective of the major global women’s rights treaty that was ratified by the majority of the world’s nations a few decades ago.

WOm

DSC_0021

Bangladeshi-British women, including the author of this piece, in East London hold placards against sexual violence against women in 2015. Situation has worsen since. Courtesy: P V Dudman

In the US and pretty much in other western countries, women begun to enter work for many reasons including the rise of wages that made couples see that it is more beneficial for them, deindustrialization and men moving offshore or getting out of work.  Women earned about 60-65 percent of what men earned from the 1950s to the 1980s. After 1980, this began to equalize so that by about 2000, women earned 76 percent of what men did. Since 2000 there hasn’t been much more progress toward equality.

Women still earn less than men for many reasons which are unbelievably discriminatory. One explanation is, for instance, that employers pay people when they have more years of experience, and women’s child rearing breaks make them unsuitable. A report by the Women and Equalities Select Committee concluded last year that responsibility for childcare and the concentration of women in low-paid sectors were key causes of the pay differential. This means that some employers discriminate against women when hiring in higher-paying jobs, leaving the women no choice but to seek lower-paying jobs.

The glass ceiling is broken by a very few women and some when they get there are not very appreciative of feminism. ‘Far from “smashing the glass ceiling“, she was the aberration, the one who got through and then pulled the ladder up right after her, noted the reporter correctly in the Guardian on 9 April 2013.

So women have been given access to enter into a man’s work world only to stretch and fit, and as a result there is no qualitative change. The numerical pointers are not necessarily the indicators of success, while substantive changes are.

A woman now has to juggle working all day in overarching sexist structures and environments and tackle the bulk of housework and childcare after, doubling the stresses she previously had. Here’s another reality: Inequality is glaring when one sees that with most well off couples, the woman having the worse car while the husband flashes the better one. These indicators are evidence that attitudes and mentality have not changed around women although the benefits of their income have been realized by many.

Another achievement globally is where more girls are entering education and even higher education. However appalling safety levels and poor resources of the schools and incidents against women in developing countries do not allow for a real difference for girls.

The Independent in January 2017 has reported that ‘Russian lawmakers are being urged to reject a “dangerous” law that could decriminalise all acts of domestic violence, with the exception of rape and serious bodily harm.’  Let’s not forget that a large percentage of the world refuses to recognise rape within marriage as a criminal offence. In Turkey , for example, a draft law stipulates that men who sexually abuse girls under 18 without “force, threat or any restriction on consent”, and who marry their victim could go free.

Bdnews24 in Bangladesh reported on 27 February this year that ‘Bangladesh Parliament passes law allowing child marriage in “special circumstances”. Prime minister, Sheikh Hasina, has defended the law by saying the critics “know nothing about Bangladesh’s social system” and that her government was “making the law considering the ‘realities’ of society”. In Explaining the “special circumstances, the prime minister in Bangladesh who is a woman herself, said:

We’ve fixed the minimum age for girls to marry at 18. But what if any of them becomes pregnant at 12-13 or 14-15 and abortion can’t be done? What will happen to the baby? Will society accept it?

She added then, the girl could go for marriage with her parents’ consent in such circumstances in order to give the baby a “legal status” in society.

New York-based Human Rights Watch (HRW) have responded correctly, “Accidental or unlawful pregnancy suggests the law could lead to a situation where girls who have been raped are forced to marry their rapists.”

The same Prime Minister, Sheikh Hasina, promised in the 2014 Girl summit that child marriage will be eradicated by 2024. Bangladesh reports the highest case of child marriage at 66% on girls under the age of 18 getting married and over one third getting married before the age of 15. The recent law has just given for child marriages to rise and also the unintended consent to abuse of children.

Here in the UK, the Crime Survey for England and Wales (CSEW) estimates that 8.2% of women and 4.0% of men reported experiencing any type of domestic abuse in the last year and 2.7% of women and 0.7% of men had experienced some form of sexual assault (including attempts) in the last year.  (2017). Two women are killed every week in England and Wales by a current or former partner (Office of National Statistics, 2015)

The Guardian on 5 January, 2016, reported that Women outnumber men in 112 of 180 degree subjects, with females from poorer backgrounds 50% more likely to go to university than their male counterparts.

Papworth Trust in 2016 found that ‘one study shows there is evidence that Indian Asian people are significantly more likely to experience higher rates of disability than Europeans’., quoting Emily D Williams study Ethnic Differences in Disability Prevalence and Their Determinants Studied over a 20-Year Period: A Cohort Study.

This rather depressing state of affairs shows that issues of poverty, race, disability, sexual orientation and gender, amongst many other things, often combine to create a reality of extreme disadvantage for certain groups. Most of the time, these groups are female’, according to the New Statesmen 2013.

The status quo, the place where it is accepted that the poor, the physically weaker and people who are different get it rough, is tough and is so outdated and simply cruel. With regards to women, this is not helped by the large proportion of male banter concerning women around how they look and what they would like to do with them – usually violently when they have an issue with them.

Society-made, insurmountable obstacles hinder the progress of gender equality. With one step forward and leaps back the ugly mountain blocks our future unless some real changes are made worldwide.

UN Women have suggested the strategy for states to come together in working in their economies so that it works for women and equality by making macroeconomic and political changes with women’s development at the centre of it. They say that ‘they would have equal access to opportunities and resources – a good job with equal pay, or access to land – and social protection, which together would provide enough income to support a decent standard of living, from birth to older age. Their life choices would be unconstrained by gender stereotypes, stigma and violence; the paid and unpaid work that women do would be respected and valued; and women would be able to live their lives free from violence and sexual harassment. They would have an equal say in economic decision-making: from having a voice in how time and money are spent in their households; to the ways in which resources are raised and allocated in their national economies; to the broader economic policies set by global institutions.’  In their progress report in 2015 of the world women – 16 ‘Transforming Economics, Realising Rights’, they urge member states:

 To support substantive equality, economic and social policies need to work in tandem. Typically, the role of economic policies is seen primarily in terms of promoting economic growth, while social policies are supposed to address its ‘casualties’ by redressing poverty and disadvantage and reducing inequality. But macroeconomic policies can pursue a broader set of goals, including gender equality and social justice. Conversely, well-designed social policies can enhance macroeconomic growth and post crisis recovery through redistributive measures that increase employment, productivity and aggregate demand.

Let us call for a more equal world this International Women’s Day with the UN Women’s proposals listened to in order to help forge a better working world, a more inclusive, gender equal world. We can only keep trying and urge governments to enact and enforce these policies that would also change attitudes towards women and we can gradually get to see the qualitative change as and when the insurmountable obstacles are removed.

Advertisements


1 Comment

Press Release: Zero Tolerance to Sexual Violence – Protest against Sexual Assualts on Women

On Tuesday, 21 April,  about 70 protesters rallied at the Shaheed Minar at Altabl Ali park at Tower Hamlets to condemn the organised sexual assaults on women which was committed against 20 women by identifiable perpetrators during the celebration of Bangla new year in Dhaka. The powerful protest was co-organised by Nari Diganta and Jubo Union, UK.  Nari Diganta activist, Nilufar Yasmin, writes a Bangla report of the protest as follows.

Rally against sexual assaults on women at Altab Ali park. Courtesy: P V Dudman

Rally against sexual assaults on women at Altab Ali park. Courtesy: P V Dudman

পহেলা বৈশাখে নারীর উপর যৌন হয়রানীর প্রতিবাদে নারী দিগন্ত যুব ইউনিয়নের বিক্ষোভ সমাবেশ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে নারী নির্যাতন ও নারীর উপর যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করে উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যের নারী দিগন্ত এবং যুব ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সর্বস্তরের জনগণ। প্রতিবাদ সভায় সকল বক্তাই এই ধরনের পৈশাচিক ন্যাক্কারজনক হামলার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছে।

একুশে এপ্রিল মঙ্গলবার বিকালে পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্কে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ ও বিক্ষোভে উপস্থিত সকল বক্তাই প্রায় একই সুরে সেদিন পুলিশের যে সকল সদস্য কর্তব্যে অবহেলা করেছে তাদেরকে উপযুক্ত জবাবদিহিতার আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন। এছাড়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কর্তব্যে অবহেলার যে অভিযোগ উঠেছে সে বিষয়ে জবাবদিহিতার ব্যবস্থা করার জন্য সক্রিয় উদ্যোগ নেয়ার দাবী জানানো হয়।

Nari Diganta's publicity Secretary Nilufa Hasan condemns organised violence against women.

Nari Diganta’s publicity Secretary Nilufa Hasan condemns organised violence against women.

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে বিভিন্ন শ্লোগান সম্মিলিত প্ল্যাকার্ড বহন করে সমাবেশে বলা হয়, বার বার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় মুক্তমনা মানুষকে হত্যা, নারীর উপর আক্রমন কোনক্রমেই গ্রহণযোগ্য নয় এবং কর্তৃপক্ষের এই ধরনের দায়িত্বহীনতা মুক্তিযুদ্ধে অর্জিত বাংলাদেশের মূল লক্ষ্যকে পিছনে ঠেলে দিচ্ছে বলে বক্তারা উল্লেখ করেন। যুগ যুগ ধরে জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে বাংলা নববর্ষের উৎসব পারষ্পরিক সৌহার্দ ও সম্প্রীতির সেতুবন্ধন তৈরী করে। পহেলা বৈশাখে ঢাকায় নারীর উপর যে যৌন হামলা হয়েছে তা শুধু নারীর উপর হামলা নয়, এই হামলা অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও বাঙালী সংস্কৃতির উপর আঘাত, এই আঘাতকে প্রশ্রয় না দিয়ে পাল্টা আঘাত অর্থাৎ কঠোর হস্তে দমনের পক্ষে সকলেই মত দেন। আইনের মাধ্যমে দোষীদের শাস্তি না দিলে এই প্রবণতা কখনো বন্ধ হবেনা। পহেলা বৈশাখে নারীদের উপর যৌন নিপীড়নকারীদের সাংগঠনিক পরিচয় নিয়ে বিতর্ক না করে অবিলম্বে তাদের প্রেফতার করে কঠোর শাস্তির দাবী জানিয়েছে সবাই।

সকল সময়ে দেশের চিহ্নিত কথিত ধর্মীয় নেতারা নারীদের প্রতি অসম্মানজনক কটূ মন্তব্য করে নিপিড়কদের পরোক্ষভাবে উৎসাহ দিচ্ছে। আইন করে নারী বিদ্বেষী বক্তব্যকারীদের শাস্তির ব্যবস্থা না করলে এই ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা বন্ধ করা যাবেনা বলে সকলেই মত দিয়েছেন।

Agitators at the protest at Altab Ali park. Photo credit: Tanvir Ilias

Activists at the protest at Altab Ali park. Courtesy: Tanvir Ilias

যুব ইউনিয়নের যোবায়দা নাসরিনের পরিচালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ডা: রফিকুল হক জিন্নাহ, আবু মুসা হাসান, নারী দিগন্ত নেত্রী নাসিমা কাজল, ডঃ রুমানা হাশেম, নিলুফা ইয়াসমীন, পুষ্পিতা গুপ্ত, পিয়া মায়েনিন, কমুনিস্ট নেতা মসউদ আহমেদ, সত্যব্রত দাশ স্বপন, নারী চেতনার নাজনিন সুলতানা শিখা, অজন্তা দেব রায়, যুব ইউনিয়নের নাসরিন এ মনজুরী এবং শাহরিয়ার বিন আলী। আরো বক্তব্য রাখেন আসীম চক্রবর্তী, সাঈদা সিমি, স্মৃতি আজাদ, গোলাম কবীর, সুশান্ত দাসগুপ্ত,  রীনা মোশাররফ, নূরুল ইসলাম, পলিন মাঝি প্রমুখ।

Agitators at the protest at Altab Ali park. Courtesy: Tanvir Ilias

Agitators at the protest at Altab Ali park. Courtesy: Tanvir Ilias

লাঞ্চিত নারীকে বাঁচাতে গিয়ে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি লিটন নন্দী যে আহত হয়েছেন, তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে প্রতিবাদ সভায় এই ধরনের ঘটনায় সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করা হয়।

ভিডিওতে অপরাধ শনাক্ত করা গেলেও পুলিশ আজও অপরাধীদের ধরতে পারেনি, যতদিন অপরাধীরা ধরা পড়বেনা, শাস্তি হবেনা ততদিন আন্দোলন প্রতিবাদ চালিয়ে যাবে বলে বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত সকলে মতামত ব্যক্ত করেন।

Nari Diganta leaders hold placards against sexual violence against women. Courtesy: P V Dudman

Nari Diganta leaders hold placards against sexual violence against women. Courtesy: P V Dudman

Women agitators at the protest at Altab Ali park. Courtesy: Tanvir Ilias

Women agitators at the protest at Altab Ali park. Courtesy: Tanvir Ilias


1 Comment

Rumana Hashem Tells the Story of Her Bangladeshi Sisters

Nari Diganta Calls Everybody to Join the Protest against Sexual Violence of Women

To condemn and call for action against the brutal sexual violence which were committed against 20 women in Dhaka during the celebration of Bangla New Year on Pohela Baisakh, a protest meeting has been arranged by Nari Diganta and Bangladesh Youth Union, UK.

When? Tuesday, 21 April, at 5.30pm.

Where? Altab Ali Park Shaheed Minar, Tower Hamlets, London E1 1, United Kingdom.

Please join us in the protest with your friends. Tell Bangladesh government to take action against the rapists. The perpetrators must be apprehended.

Please check out the facebook event page and indicate your joining here https://www.facebook.com/events/357725651099101/


1 Comment

Nari Diganta denounces the heinous act of sexual harassment of girls and young women in Dhaka

Bangladesh Government Must Take the Responsibility to Apprehend the Perpetrators

Rumana Hashem

In the evening of 14 April, during the celebration of Bangla New Year 1422, called Pohel Boishak, 20 young Bangali girls and women were attacked by a group of rapists who took possessions of women’s bodies by forcing them to be naked and lied down on the ground while rapists played with their bodies at the premise of the country’s largest public University in the capital city of Dhaka. While the act of violence against these women was just less what we call rape in the West, the ferocity of the sexual assault was beyond account. The outrageous act of sexual harassment of young women in public went on for about two hours, near the gate of Teachers and Students’ Centre (TSC) of Dhaka University and the Suhrawardy Udyan (the historical Suhrawardy Garden), known as a premise of the country’s progressive people. During the vicious incidence, a group of progressive students belonging to a left political student’s organisation, called the Bangladesh Students Union (BSU), had protested the incident and tried to stop the rapists. As an end result, they were badly beaten up and threatened to be killed by the rapists. The rapists broke an arm of one protester, Liton Nandi, a leading activist and key organiser of the Bangladesh Student’s Union.This outrageous occurrence is unacceptable.

Bangladeshi police and campus security guards were present in the premise during the atrocities. They have witnessed everything throughout the dramatic sexualised event. Police failed the nation and did not play the role of state security personnel. They played extremely controversial role by keeping silent and by watching the incidence as armless staff of the state. By keeping silence and acting as statues, cop gave shelter to the rapists. Further, the University administration and local government denied their responsibilities to prevent these appalling sexualised violence happen in the premise of Dhaka University. The Proctor of the University has made controversial statements and denied to have evidence of sexual assaults of women within the Dhaka University’s premise whereas CCTV footage shows there is plenty of evidence and it is quite possible to identify the perpetrators.

This is not the first time that Bangladeshis have witnessed such masculinity and brutality of sexualised violence against women in Bangladesh. Masculinity is pervasive in Bangladesh but government plays hopeless roles to prevent such violence, allowing renewed sexualised violence against women. In 2000, a young woman was gang raped and killed at Dhaka University premise during the celebration of a new year in the eve of millennium. The woman was raped in front of her boyfriend. Both her boy friend and the millennium had witnessed the gendering of a young woman’s body right in the eve of a new era. Her fault was that she went to celebrate millennium as many men.

The story repeated on Tuesday, and this time our sisters were assaulted at day light by rapists in a similar fashion that the millennium had witnessed. Bangladeshi women are being destined to pervasive masculinity of some men and cadres of the ruling party. There has been nation-wide outrage to the incidence of Pohel Boishak.

Protest against sexual violence in Dhaka 15 April 2015. Courtesy: Facebook Group of Bikhubdho Nari Samaj  via Thot Kata

Protest against sexual violence in Dhaka 15 April 2015. Courtesy: Facebook Group of Bikhubdho Nari Samaj via thot kata

Yesterday women’s right campaigners have demanded apposite punishment of the perpetrators in a protest under the banner of Bikhubdho Nari Samaj (the society of women agitators). In response to the protest and nation-wide condemnation by women’s rights campaigners, the Bangladesh High Court has ruled the case as a sexualised violence against women. The perpetrators must be apprehended.  Further protest to demand appropriate punishment of the perpetrators and to address the need for an appropriate law to punish the perpetrators, has been organised by Bangladesh Students Union which will be held on Friday, 17 April in Dhaka.

As Bangladeshi-born women’s rights campaigners, we stand in solidarity with the agitating protesters.  We pay respect to our assaulted sisters.  We express full support to the demands of Bikhubdho Nari Samaj and Bangladesh Students Union (BSU) in Dhaka.  #freewomen #respectforwomen #preventsexualisedviolence

Below is a Facebook note by Professor Gitiara Nasreen, a key organiser of yesterday’s protest and a leading left-feminist in Bangladesh. In her note, Nasreen provides some findings which she compiled from the discussion which was being held in the protest by Bikhubdho Nari Samaj on Wednesday, 15 April. We have reproduced the findings for our Bangla-speaking women’s rights campaigners in London.

যৌননিপীড়িত উৎসব।।
গীতিআরা নাসরিন

বাংলা সন ১৪২২ এর প্রথম দিনে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এবং সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের গেটের মধ্যবর্তী জায়গায় প্রায় এক-দেড় ঘন্টা জুড়ে যে দলবদ্ধ যৌন-নিপীড়ন চলতে থাকে, সে সম্পর্কে ২রা বৈশাখ বিকেল পাঁচটায় ‘বিক্ষুদ্ধ নারী সমাজ’ ব্যানারে আয়োজিত প্রতিবাদ/প্রতিরোধ সভা থেকে পাওয়া কিছু তথ্য।

১. একজন নয়, বিভিন্ন বয়সের একাধিক নারী যৌন-নিপীড়িত হ’ন।
২. তাদের সঙ্গে যে পুরুষ-সঙ্গীরা ছিলেন, তারাও নিপীড়কদের শারীরিক আক্রমণের শিকার হয়েছেন।
৩. বিশ/পঁচিশজনের কয়েকটি দলে দফায় দফায় বিভিন্ন নারীর ওপর এই নিগ্রহ চালানো হয়।
৪. দাঁড়িয়ে থাকা, হাঁটতে থাকা, রিকশায় বসা কিম্বা ধাক্কাধাক্কির ফলে মাটিতে পড়ে যাওয়া, সকল অবস্থাতেই নারীটিকে (সঙ্গী এবং একটি ক্ষেত্রে ৮ বছরের শিশুসহ) ঘিরে ফেলে নিপীড়ন চালানো হয়।
৫. যৌন-নিপীড়নের পদ্ধতি ছিল গায়ের কাপড় টানা/খোলা/ছিঁড়ে ফেলা এবং শরীরের বিভিন্ন অংশে নানাভাবে হাত ও মুখ দেওয়া অর্থাৎ খামচানো/আঁচড়ানো/কামড়ানো।
৬. রক্ষাকারীরা সংখ্যায় কম ছিলেন, তারাও প্রহৃত হ’ন। ছাত্র ইউনিয়নের লিটন নন্দীর হাত ভেঙ্গে গেছে। উপস্থিতরা অনেকেই (পুলিশসহ) সাহায্যে এগিয়ে আসেন নি এবং ভিডিও বা ফটো তুলে রাখায় ব্যস্ত ছিলেন।
৭. এসময় আক্রমণকারী এবং আরো অনেকেই প্রচন্ড শব্দে ভুভুজেলা বাজাচ্ছিল।
৮. সোহরাওয়ার্দী ফটকের পাশেই ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশ বুথ, এবং ঘটনাস্থলে কমপক্ষে দু’টি ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা ছিল।
৯. প্রতিরক্ষাকারীরা কয়েকজনকে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিলেও, তাদের সবাইকে পুলিশ ছেড়ে দেয়।
১০. পয়লা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার মধ্যে রাত দশটা পর্যন্ত যানবাহন বন্ধ থাকার কথা থাকলেও, দুপুর দুটোর পর থেকেই যান-বাহন চলাচল শুরু হয়।
১১. সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের টিএসসি মুখী গেটটি নববর্ষের দিন বন্ধ রাখার কথা, কিন্তু গেটটি সবসময়েই খোলা ছিল।

Another front-line Bangladeshi feminist and our friend, Nasrin Siraj, has written an analysis to the prevalence of sexual violence and masculinty in Bangladesh. The article was being published on ঠোঁটকাটা (Thot Kata -The Sharp Tongue), which has been reproduced below with permission of the editor of Thot Kata and the author of the article. 

“WE NEED RED CHILLI POWEDER TO PREVENT SEXUAL VIOLENCE  AGAINST WOMEN”

By Nasreen Siraj

যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে মরিচের গুঁড়ো

নাসরিন সিরাজ

“নয়-দশ বছরের মেয়েটির কাপড় ছেঁড়া, শরীরে মানুষের দাঁতের দাগ। কামড়ে মাংস থেতলে গিয়েছে…দৃষ্টিসীমায় ছিল বহু পুলিশ…ভুভুজেলার তিব্র চিৎকারের ফাঁকে শুনতে পেলাম আশপাশের লোকজন বলছে, ‘ভিডিও কর! এইটা ভিডিও কর!” উপরের বাক্যগুলো দিয়ে একজন প্রত্যক্ষদর্শী এবারের পয়লা বৈশাখে রমনায় ঘটে যাওয়া যৌন নিপীড়নের ঘটনা বর্ণনা করেছেন। ফেইসবুকে শেয়ার করেছেন খবরটা এক নাগরিক, সাংবাদিক। শাহবাগে বিক্ষুব্ধ নারী সমাজ প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। যৌন নিপীড়ন বিরোধী তৎপরতা প্রত্যক্ষ করছি আমরা। পাশাপাশি দেখছি কিছু গণমাধ্যমে যৌননিপীড়নের মত গুরুতর অপরাধকে শ্লীলতাহানী আখ্যা দিয়ে অপপ্রচার চলছে। তাদের সাথে যুক্ত হয়েছে পুলিশ প্রশাসনের “সিসিটিভি ক্যামেরা দিয়ে অপরাধী ধরবো” তামাশা।

আমার এক শিক্ষক পরামর্শ দিয়েছেন যৌন নিপীড়কদের বিরুদ্ধে নারীদের পুরোনো রক্ষাকবচ মরিচের গুঁড়ো এস্তেমাল করার জন্য। কথাটা প্রতীকি অর্থেও ব্যবহৃত হয়। যৌন নিপীড়নের মত গুরুতর অপরাধকে বিভ্রান্তিকর নামে ডেকে যারা তামাশা করছেন তাদের চোখের ঠুলি সারাতে আমাদের লেখাই মরিচের গুঁড়ো। তাই ২০১০ এ বুধবার নামক একটি সাপ্তাহিকে প্রকাশিত একটি পুরোনো লেখা ঠোঁটকাটায় আবার প্রকাশিত হল। এবারের ঘটনা ও তাকে ম্যানেজ করার জন্য প্রশাসন ও তার অপশক্তিগুলো যে কান্ডগুলো করছে তার সাথে পুরোনো ঘটনা ও ম্যানেজ প্রক্রিয়ার মিলগুলো ঝালিয়ে নিলে নারীমুক্তির লড়াই শক্তিশালী হবে বলেই আমরা আশা করছি।

যৌন নিপীড়নের পক্ষে/বিপক্ষের তৎপরতা পর্যবেক্ষণ, ২০১০

নাসরিন সিরাজ

২০০৯ সালের মে মাসে যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট থেকে একটি নির্দেশনা এসেছে। এই অর্জনের পর, ২০১০ এর শেষে এসে যৌন নিপীড়নের ঘটনাগুলো কিভাবে রাষ্ট্র , নীতি নির্ধারকরা ও গণমাধ্যম বিলি বন্টন করেছে সেটা বুঝবার চেষ্টা থেকে এই পর্যবেক্ষণ। জাতীয় পত্র-পত্রিকা, ইন্টারনেট প্রত্রিকা, ব্লগ কিংবা ফেসবুকে এ বছরে প্রকাশিত লেখালেখি থেকে দেখা যায় এ বছরও যৌন নিপীড়ন নিয়ে আলোচনা বেশ সরগরম ছিল। এই উত্তপ্ততা নির্দেশ করে যে ঘরের বাইরের পরিসরে নারীর অস্তীত্ব টিকিয়ে রাখার স্বার্থে যৌন নিপীড়ন বিরোধী এই নির্দেশনাকে আরও সম্প্রসারিত করার দরকার যেটা যৌন নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলনকে অব্যাহত রাখতেও সাহায্য করবে।

হাইকোর্টের নির্দেশনামা জারি হবার সাথে সাথে যৌন নিপীড়নের ঘটনা হ্রাস পাবে এরকম আশা যৌন নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলনের সাথে যারা দীর্ঘদিন যুক্ত আছেন তারা করেননি। বরং সমাজে বিদ্যমান লিঙ্গীয় বৈষম্য দূর করতে যৌন নিপীড়ন বিরোধী ব্যপক প্রচার প্রচারণা চালিয়ে জনসচেতনতা তৈরীই ছিল সংশ্লিষ্টদের পরবর্তী লক্ষ্য। হাইকোর্টও সেরকম নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু দেখা গেল এ বছরটা ঠিক বিপরীত কাজটাই হল।

প্রথমত: যে ভয়াবহ কাজটি হল সেটি সরকার নিজেই করেছে আর তা হল “ঈভ টীজিং” শব্দটিকে আস্তাকুঁড়ে থেকে উদ্ধার এবং সমাজের দৈনন্দিন বাতচিতের মধ্যে এই হালকা শব্দটির পুনর্বহাল। নৃবিজ্ঞানী রেহনুমা আহমেদ তার লেখায় (eve teasing: of semantic shifts and criminal cover ups, 15.11.2010. New Age) এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। তিনি এ বছরের বিভিন্ন সময়ে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো উল্লেখ ও বিশ্লেষণ করে যুক্তি দেন যে মূলত: আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের কর্মী বা ক্যাডারদের যৌন সন্ত্রাস ঢাকা দিতে এবং তাদের শাস্তির হাত থেকে রক্ষা করতে এটা করা হয়েছে। তিনি আরও যুক্তি দেন যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রোভার স্কাউটদের সাথে নিয়ে “ঈভ টীজিংকে না বলুন” প্রচারণা শুরু করে এবং জুনের ১৩ তারিখকে “ঈভ টিজিং প্রতিরোধ দিবস” হিসেবে ঘোষণা দিয়ে যৌন নিপীড়নকে হাল্কাকরণ প্রক্রিয়ায় বাতাস দেন। একই লেখক (Thou spoke with a man’s tongue , Mananiya Prime Minister!, 13.12.2010. New Age) রোকেয়া পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের বিশ্লেষণ করে বলেন যে প্রধানমন্ত্রী নারী হলেও প্রকৃতপক্ষে তিনি পুরুষের ভাষাতেই কথা বলছেন। আপাত: দৃষ্টিতে আওয়ামী লীগের “শত্রু” হিসেবে চিহ্নিত জামায়াত-ই-ইসলামীর প্রধানের নারী বিদ্বেষী অবস্থানকেও প্রধানমন্ত্রী সমর্থন করছেন। উল্লেখ্য “ঈভ টীজিং” এর কারণ প্রসঙ্গে জামায়াত প্রধান মতিউর রহমান নিজামী বলেছেন মেয়েরা রাতে বের হয় বলেই এই ঘটনাগুলো ঘটে। একই প্রসঙ্গে কক্সবাজার জেলা ইসলামী ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইয়াসীন হাবিব বলেছেন, “ঈভ টীজিং” না থাকলে পৃথিবীর সব পুরুষ হিজড়া হয়ে যাবে। ঈভ টীজিং না থাকলে দেশে অরজাকতা সৃষ্টি হবে। অনেক মহিলা হালকা কাপড় পরে বের হয় পুরুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য। তারা নিজেদের কারণে “ঈভ টীজিং” এর শিকার হচ্ছেন।” (সূত্র: আমাদের সময়)। প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার “মেয়েদেরও শালীন ভাবে চলা উচিত” এই বক্তব্যের সমালোচনা করে রেহনুমা প্রশ্ন করেন- দেশের বড়লোক সমাজের মেয়েরা কি পোশাক পরে না পরে বা যৌন স্বাধীনতার নামে কি ফ্যান্টাসীতে ভোগে না ভোগে সেই প্রসঙ্গ টেনে এনে সাধারণ, কর্মঠ মেয়েদের (প্রকৃতপক্ষে যাদেরকে রাস্তাঘাটে দেখা যায়) প্রাত্যহিক সমস্যাকে কেন তরল করা হচ্ছে, যখন আমরা জানি যে যৌন নিপীড়নের কারণে মৃত্যুর (আত্মহত্যা, খুন) ঘটনা অগুনতি এবং স্কুল ছেড়ে দেয়ার হার উচ্চ?

এ বছরই আমরা দেখতে পেয়েছি সরকারের অপারেশন রোমিও হান্ট নামে র্যা ব প্রকল্প এবং কিশোরদের গলায় “বখাটে” সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে ছবি তুলে পত্রিকায় প্রকাশ। এ বছর মোবাইল কোর্ট বসিয়ে “বখাটেদের” “ঈভ টীজিং” করার দোষে শাস্তিও দেয়া হয়েছে। কিন্তু সরকার নিজেই যেহেতু বিভ্রান্ত আর পক্ষপাতদুষ্ট তাই এই উদ্যোগগুলো নিয়ে প্রশ্ন তোলাটা গুরুত্বপূর্ণ। সাংবাদিক শামীমা বিনতে রহমান তার লেখায় (ইভটিজিংয়ের বিস্তার ও মিজানুর রহমানের প্রতিবাদের খেসারত, ২২.১০.২০১০, bdnews24.com) তুলে ধরেন কিভাবে নারীদের পাশাপাশি পুরুষরাও সরকারের এই তরলীকরণ প্রক্রিয়ায় জীবন দিচ্ছেন। তিনি লেখেন যে মিজানুর যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ করতে গিয়ে যখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছিল তখন স্থানীয় মানুষের সংগবদ্ধ উদ্যোগে (পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় তারা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিল) একজন আসামীকে স্থানীয় এক আইনজীবির বাসা থেকে পাকড়াও করা হয়। এই ঘটনাগুলো প্রমাণ করে যৌন নিপীড়নের আসামীদের রক্ষার ব্যপারে স্থানীয় রাজনৈতিক ক্ষমতাও কার্যকর ভূমিকা পালন করছে। তিনি বলেন, “ নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার লোকমানপুর কলেজের রসায়ন বিভাগের ৩৬ বছর বয়সী শিক্ষক মিজানুর রহমানের ঘটনা কেবল যৌন উৎপীড়ক, পুরুষালী মানসিকতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের দৃষ্টান্তই নয়, ইভটিজিংকে হাল্কাভাবে নেয়ার সরকারী সিদ্ধান্তের অসারতা উন্মোচনেরও দৃষ্টান্ত।”

এবারে আসি যৌন নিপীড়ন বিরোধী তৎপরতায়। যৌন নিপীড়ন বিরোধী নীতিমালা বাস্তবায়নের সমস্যা নিয়ে বরাবরের মত এ বছরও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সোচ্চার ছিল। জুন মাসে হাইকোর্ট বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য ও রেজিস্টারকে যৌন নিপীড়ন বিরোধী নির্দেশ মালায় নির্দিষ্ট করা গাইডলাইন লংঘন করার কারণে শমন জারি করে। সূত্র : Press Release: High Court Orders Vice Chancellor and Register in Charge of Jahangirnagar University to Show Cause Re Contempt for Disclosing Identity of Complainant. date : 3.6.2010. link : http://solidarityworkshop.wordpress.com/2010/06/03/pr-hc-ju-contempt/) উল্লেখ্য, হাইকোর্টের নির্দেশের অনুচ্ছেদ ৮(ক) এবং ১০ (৩) অনুযায়ী অভিযোগ প্রমাণের আগ পর্যন্ত অভিযোগকারী ও অভিযুক্তের পরিচয় গোপন রাখার কথা বলা আছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্তৃপক্ষ সেটি লংঘন করে তদন্ত প্রক্রিয়াধীন একটি যৌন নিপীড়নের ঘটনার অভিযোগকারী শিক্ষিকার নাম বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় (২৭ এপ্রিল) বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রকাশ করে।

২৭ নভেম্বর নিপীড়নের বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর একটি গোলটেবিল আলোচনা করে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে। বিশ্ববিদ্যালয়টির সরকার ও রাজনীতি বিভাগের শিক্ষক নাসিম আখতার হোসেইনের আহবানে সেখানে উপস্থিত হন সাংবাদিক এবং যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে সক্রিয় শিক্ষক, প্রাক্তন ছাত্রী-ছাত্র ও বিভিন্ন নারী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। বিশ্ববিদ্যালয়টির ১৮ বছরের (দেখুন ধর্ষণ বিরোধী ছাত্রী আন্দোলন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ’৯৮ তে সংগঠিত আন্দোলন নিয়ে প্রকাশনা সংকলন, অশুচি, ১৯৯৯) যৌন নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলন সংগঠন ও যৌন নিপীড়ন বিরোধী নীতিমালা প্রণয়নে সক্রিয় অংশগ্রহনের অভিজ্ঞতার আলোকে ঐ গোল-টেবিলে আলোচনা করা হয়। যেমন: যৌন নিপীড়কদের শাস্তি প্রদানের সফলতা (বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চাকুরিচ্যুত করা গেছে বা পদাবনতি করা গেছে কিন্তু রাষ্ট্রের সাধারণ আইনের কাছে তাদের সোপর্দ করা যায়নি) থেকে দেখা গেছে যে “আইন তাদেরই ধরে যাদের ক্ষমতা নেই। যখন অপরাধীর সাথে ক্ষমতার সাথে, রাজনৈতিক দলের সাথে, শিক্ষকদের ভোটের রাজনীতির সাথে সম্পর্ক থাকে তখন তাকে আর শাস্তি দেয়া হচ্ছে না ( বক্তা: নাসিম আখতার হোসেইন)। তিনি আরও বলেন যে হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এটা নিয়ে সক্রিয় হবার কথা কিন্তু কেবল মাত্র জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুটা কাজ হচ্ছে। এই সফলতায়ও খুশী হওয়া যাচ্ছে না কারণ আইন সেখানে কার্যকর হচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক আনু মুহাম্মদ যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধে সরকারের এ বছরের কার্যকলাপকে অস্থায়ী সমাধান হিসেবে আখ্যায়িত করে স্থায়ী সমাধানের জন্য কি করা যেতে পারে সেটা আলোচনা করার জন্য গোলটেবিল বৈঠকটি সঞ্চালন করেন। আলোচনায় উঠে আসে যে হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিযোগ সেল গঠন করা হচ্ছে ঠিকই কিন্তু এই সেলের সদস্য তারাই হচ্ছে যারা প্রশাসনের সাথে যুক্ত বা অনুগত ব্যক্তি। ফলে অভিযুক্ত ব্যক্তির বদলে অভিযোগকারীর দোষ নিয়ে তারা বেশী আগ্রহী। নারীর জন্য সুবিচার নিশ্চিত করতে অভিযোগ সেলে শুধু নারী সদস্যের অন্তর্ভুক্তিই যথেষ্ট নয়। কারণ তারাও এই ব্যবস্থার বাইরে কাজ করে না। যেমন এ বছরে আলোচিত আব্দুল্লাহ হেল কাফী কেইসের তদন্ত রিপোর্টে অভিযোগকারীর সমস্যা হিসেবে উল্লেখ আছে যে তার ব্যক্তিত্বের সমস্যা আছে, সে অস্থির মতি, চঞ্চল প্রকৃতির এবং তার দ্রুত ধৈর্য স্খলন ঘটে। এই “অপরাধগুলো”র কারণে অভিযোগকারী শিক্ষিকারও চাকুরিতে পদাবনতি ঘটে। দেখা গেছে যৌন নিপীড়নকে চিহ্নিত না করে সেটাকে “অসদাচরন” আখ্যা দিয়ে বিষয়টিকে হালকা করা হয়। যেমন একই তদন্ত রিপোর্টে বলা হয়েছে অভিযোগকারী অভিযোগ “বাড়াবাড়ি”। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কাবেরী গায়েন বলেন, “অসৎ চরিত্র ও অদক্ষতা যে যৌন নিপীড়ন থেকে আলাদা বিষয় এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনকে বুঝতে হবে”। “যৌন নিপীড়নের শক্ত প্রমাণ নেই” যুক্তি দিয়ে অনেক মামলা খারিজ করা হয় প্রসঙ্গে বিচারপতি গোলাম রাব্বানী নারী নির্যাতনের স্বাক্ষী নিজেই, অর্থাৎ তাকে ইনজুরড ইউটনেস হিসেবে ধরতে হবে এই সুযোগ আমাদের দেশের আইনেই আছে এবং সেটার চর্চা তিনি নিজেও করেছেন (তিনি আরও দেখতে বলেন BLD 16, Vol 230)

২০০০ দশকের শুরুটা হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলন চত্বরে মিলেনিয়াম উৎসবে দুই শতাধিক তরুনের দ্বারা একজন নারীকে বিবস্ত্র করার মাধ্যমে। এই বছরের শুরুটা হয়েছে জন সমক্ষে যৌন নিপীড়ন করায় পিংকির আত্মহত্যার খবর দিয়ে। ২০১০ এর পহেলা বৈশাখ উদযাপন হয়েছে ছাত্রলীগের কর্মীদের দ্বারা কনসার্টে মেয়েদের শরীরে সংগবদ্ধ যৌনজ আক্রমন করে। নতুন বছর শুরু করতে যাচ্ছি আমরা। শুরু করতে যাচ্ছি একবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় দশক। যৌন নিপীড়নের মত জটিল একটি বিষয় সরলীকরণ করার প্রকিয়া বন্ধ হোক সেই আশাই করি। আর নারীদের এগিয়ে যাওয়ার, ঘরের বাইরে বেরিয়ে আসার যে ধারাবাহিক আন্দোলন চলছে সেটা আরও শক্তিশালী হোক সেটা দেখার প্রত্যাশা করি। “পুরুষেরা – যাহারা নানা প্রকার দুষ্টামি করে, বা করিতে সক্ষম, তাহারা দিব্য স্বাধীনতা ভোগ করে, আর নিরীহ কোমলাঙ্গী অবলারা বন্দী থাকে! অশিক্ষিত অমার্জিত-রুচি পুরুষেরা বিনা শৃংখলে থাকিবার উপযুক্ত নহে। আপনারা কিরূপে তাহাদিগকে মুক্তি দিয়া নিশ্চিন্ত থাকেন?” – ১৯০৫ সালে সুলতানার স্বপ্নে বেগম রোকেয়া যে প্রশ্ন করে আমাদের বিব্রত করে রেখেছেন তার অবসান হোক।

ফুটনোট:
যৌন নিপীড়ন বলতে যে বিষয়গুলোকে হাইকোর্টের নির্দেশনামায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে সেগুলো হল:
a. Unwelcome sexually determined behaviour (whether directly or by implication) as physical contact and advances;
b. Attempts or efforts to establish physical relation having sexual implication by abuse of administrative, authoritative or professional powers;
c. Sexually coloured verbal representation;
d. Demand or request for sexual favours;
e. Showing pornography;
f. Sexually coloured remark or gesture;
g. Indecent gesture, teasing through abusive language, stalking, joking having sexual implication.
h. Insult through letters, telephone calls, cell phone calls, SMS, pottering, notice, cartoon, writing on bench, chair, table, notice boards, walls of office, factory, classroom, washroom having sexual implication.
i. Taking still or video photographs for the purpose of blackmailing and character assassination;
j. Preventing participation in sports, cultural, organizational and academic activities on the ground of sex and/or for the purpose of sexual harassment;
k. Making love proposal and exerting pressure or posing threats in case of refusal to love proposal;
l. Attempt to establish sexual relation by intimidation, deception or false assurance.
(http://www.dpiap.org/resources/article.php?id=0000194&year=&genreid=05, লিংকটি সর্বশেষ দেখা হয়েছে ২৭/১২/২০১০ তারিখে)