Community Women's Blog

We Stand for Equality, Secularism and Justice


Leave a comment

Garment-workers unrest and state coercion to impede democratic protests on the month of victory

Rumana Hashem

An urgent update from Bangladesh on the latest development in labour movement and struggles for fair wage reached our inbox in the morning on Thursday the 22nd December, when I was catching up with last minute tasks to do before a go to winter vacation. A senior journalist and feminist from Bangladesh wrote:

 

Dear Comrades and Colleagues,

 For the past few days, garment workers from Ashulia Industrial Area, Dhaka , are engaged in all forms of protest to demand an increase in the minimum wage. 

 This morning around 11.30am Comrade Moshrefa Mishu of Garments Workers Unity forum was arrested from Topkhana Road in Dhaka. She was on her way to attend a press briefing on the current movement. Another labor leader Shoumitra Kumar Das was also arrested from Ashulia along with 5 other members of his organization, Garments Sromik Front. 

 What is worrying is that police has not confirmed either of the arrest. When asked about Mishu’s arrest, the Detective Branch police said, “she is neither arrested nor detained. She was invited to have a cup of tea.” So far, no words from the officials on Shoumitra and others arrests. 

 Meanwhile two police cases are filed against 219 workers, accusing of vandalism and assaulting factory officials. Two workers named in these cases are also arrested. http://www.newagebd.net/article/5292/121-workers-fired-200-sued  

 Please do what you think is needed for the immediate release of the arrested/detained workers and labor leaders.

in solidarity  [..]

 

Mosherfa Mishu is a grassroots feminist and a gifted organiser in the labour movement whose power of mobilisation has been proven for decades now. She was detained in late 2010 and was held for months in 2011 but she never gave in.  Mishu dedicated three decades for the workers’ rights and garments movement in Bangladesh. This time Mishu was kidnapped and held by police on an important day so as to isolate her from the workers who needed her most for their fight for fair wage.  Mishu was fortunately released afterwards as the purpose was already served and 26 key organisers were detained under special act – under the Industrial Law the government in Bangladesh could take any brutal action against any worker, without reasons, if she/he disobeys imposed rules in the industrial sector. Our friend from Bangladesh wrote on Thursday evening:

Around 5.30pm, the DB police has taken Comrade Mishu to her residence. With that ends the day long drama of inviting labor leaders to drink tea in police custody.

She is in good spirit, and thanked everyone for their concern and support. However, the following labor leaders are still in custody:

1)   Shoumitro Kumar Das, President of Garment Sramik Front Savar-Ashulia-Dhamrai Regional Committee. 

2) Rafiqul Islam, President, Garment and Industry Sramik Federation.

3) Al Kamran, President of Shwadhin Bangla Garment Sramik Federation Savar-Ashulia-Dhamrai Regional Committee.  

4) Shakil Khan, General Secretary of Shwadhin Bangla Garment Sramik Federation Savar-Ashulia-Dhamrai Regional Committee.

5) Shamim Khan, President of Bangladesh Trinomul Garment Sramik-Kormochari Federation.

6) Md Ibrahim, Bangladesh Centre for Workers Solidarity Coordinator (Ashulia)

7) Md. Mizan, convener of Textile Workers Federation. 

What we see in this update is that the garment workers who are key to Bangladesh’s growing economy, and on whose labour and dedication the Bangladesh nation lives as an independent nation-state today are the ones that are being brutally subjugated and silenced. This silencing is happening in the month of victory in Bangladesh. Indeed, the month of victory seems brutal itself this year. Earlier this month, we have seen how brutally religious minorities and indigenous people have been prosecuted and oppressed by law enforcement squads in Bangladesh. Now it is the garment workers who are faced with the adversity of neo-liberal progress in a state that struggles to uphold democracy to say the least.

 

Garment workers are the driving force of Bangladesh’s national development and economic growth, they should be in the heart of the nation . Last week, on 12 December 2016, tens of thousands of garment workers in the capital city of Bangladesh, Dhaka, came out in a week-long strike. They were demanding a minimum monthly wage of 15,000 taka (£158) – a 300% increase on the current minimum wage. The strike is thought to have begun at the Windy Apparels factory, which had seen the gruesome death at work of an employee in October.

According to the Guardian (UK), the strike was provoked when 121 workers were sacked.  Their protests were declared illegal and 10 demonstrators were injured by rubber bullets. The strike then spread to other factories in the Ashulia area and by the 20th December, 59 factories were closed. Many were shut down by factory owners, who locked out the workers rather than face strike action.

The government has mobilised the notorious Rapid Action Battalion police force. Three officers from this same unit have just been sentenced to death after they were involved in politically motivated murders in 2014, in a trial which concluded 17 January this year. One of the three officers, Tarek Sayeed, is the son-in-law of a government minister, the BBC reports.

Fearing the garment workers’ strike would spread across the country, on this 21 December the government began to round up union leaders. This was despite the clearly spontaneous nature of the strike. In fact, the Clean Clothes Campaign, an NGO, reported that “none of the major trade union federations have endorsed the strike. At a number of press conferences, trade union leaders have instead urged workers to return to work.” Prosecutions swiftly followed and other union leaders went into hiding.

According to CWI report by Peter Mason, Around 5 million textile workers produce 80% of Bangladesh’s exports, and if successfully unionised they would have huge power. The continual attempts at unionisation made by the heroic textile workers constantly meet with police action and sackings. When the names of workers who wish to form a union are submitted to the government, as required by law, the government, with its many ties to the garment industry, simply turns the names over to the bosses, who then intimidate or sack them.

There are campaigns by the Clean Clothes Campaign and other NGOs which focuses on and appeals to the government, the employers and the many high street brands that profit hugely from the poverty pay and long hours of the workers. While these are important campaigns, “it is nevertheless the independent class organisation of the workers that is the essential first step”, correctly notes Peter Mason, a Socilaist Party Activist.

This militant section of workers face a brutal regime of exploitation. The Guardian reported that up to 3,500 workers were sacked in what was the first widespread action since the Rana Plaza collapse fatally buried more than 1,138 garment workers beneath piles of rubble and injured 2500 more. At that time, the government declared a day of mourning but incredibly, some bosses kept their factories open. Protesting workers burned two of them down, such was their rage. The government was forced to introduce the present minimum wage but it is totally inadequate.

Windy Apparels, where the December strike started, was supplying a number of well known high street outlets such as H&M, Tesco, Arcadia and Debenhams. Employees routinely work a 14 hour day. 8 hours are paid at the normal rate, two hours overtime, and the rest is unpaid labour. Despite a legal entitlement to sick leave, workers are routinely verbally abused, publicly humiliated, or docked pay.

The treatment of a female employee, Taslima Aktar, caused a scandal. Management repeatedly refused permission for sick leave to her when she was ill and she continued working. She then died at her sewing machine of cardiac failure following “severe respiratory distress”. The employers took her to hospital but later, her co-workers,  leaving the factory, found her body stowed away by management near the factory gates. “This is how little they value our lives … We know the same thing can happen any day, to any of us.” (The Grind, 15 December 2016.)

We urge everyone to show solidarity and raise voices against fascism of government and subjugation of garment workers in Bangladesh. We call upon all community women’s blog readers – please stand up and raise your voices to free all detained leaders of garment workers. Feel free to reproduce any part of this blog. Please write to the government asking to end arbitrary cases against garment workers and labour leaders in Bangladesh.

For further news read:

Mishu briefly detained

http://www.newagebd.net/article/5374/mishu-briefly-detained

Negotiation, not coercion to ease labor unrest

http://www.newagebd.net/article/5451/negotiation-not-coercion-to-ease-labour-unrest

Police pick up 26 people, 157 more workers terminated

http://www.newagebd.net/article/5410/police-pick-up-26-people-157-more-workers-terminated

Advertisements


1 Comment

Bangladesh Government Must Apprehend the Perpetrators of mass sexual assault on Women

An Open Letter to Bangladesh Prime Minister from International Women’s rights campaigners

We wish to echo the outrage expressed by women’s rights campaigners in Bangladesh against the organised sexual assaults on 20 women in Dhaka by identifiable perpetrators on the evening of 14 April, during the celebration of Bangla New Year 1422. It is appalling that on the auspicious occasion of Bangla Nobo Borsho, women were subjected to such a horrific event in a nation-state which is led by a woman Prime Minister. These organised sexual assaults went on for about two hours within the premise of Dhaka University where women should feel able to be safe.

The University has described the organised violence against women as a ‘normal incident’ and ‘nothing so severe’. It seems incredible that the Proctor of the University has denied having evidence of sexual assaults on women when four surveillance cameras were operating on the premises. Instead of supporting the protesters and detaining the perpetrators who conducted the heinous crime, both police and the proctor have accused the survivors of violence for not having been dressed appropriately in a plural society! It is unacceptable that the police were silent bystanders during the vicious incident.

Attack on a student Ismat Jahan Jo during demo on Sunday 10 May 2015. Courtesy: The Daily Kaler Kontho

Attack on a student Ismat Jahan Jo during demo on Sunday 10 May 2015. Courtesy: The Daily Kaler Kontho

Additionally, Police cracked down and brutally tortured the protesters against sexual assault on women during a demonstration on 10 May 2015. These demonstrate deep-rooted misogyny in Bangladeshi institutions.

Masculinity is pervasive in Bangladesh even in times of relative peace. It is deeply concerning that a secular regime which has vigorously attempted to bring war criminals for rape in the Bangladeshi war of independence in 1971 to justice fails to prevent sexual violence against women.

We stand in solidarity with the survivors of sexual violence and with the protesters in Bangladesh. The following demands should be implemented urgently:

  1. Immediate arrest and punishment of the perpetrators. But we oppose the use of capital punishment for anyone convicted in this instance.
  2. A public apology from the local police and administration of Dhaka University for failing to support the women who were tortured for one and a half hours.
  3. Immediate suspension of Police who tortured and humiliated demonstrators.
  4. Immediate suspension of the Proctor at Dhaka University for his controversial statements and for attempting to hide evidence from CCTV footage.
  5. Emergency support to the survivors of sexual violence including provision of economic, medical and mental health resources to overcome social stigma attached to sexual violence
  6. Ensure immediate support to and security of the protesters.

We, the undersigned:

https://secure.avaaz.org/en/petition/Bangladesh_Prime_Minister_Apprehend_the_Perpetrators_of_mass_sexual_assault_on_Women/

Readers are encouraged to sign the open letter and share with friends who may support our campaign.

Read published report on the Daily Star : ‘A mothers’ day gift from Police’ http://www.thedailystar.net/frontpage/mothers-day-gift-police-81752

Watch how Police van ran over human demo: https://www.youtube.com/watch?v=NUxO6QX0bII&feature=youtu.be

Watch how protesters were tortured during a demo: https://www.facebook.com/naridiganta?fref=ts

Further news: ‘Silencing Outcry’  http://www.thedailystar.net/op-ed/politics/silencing-our-outcry-82102


1 Comment

Rumana Hashem Tells the Story of Her Bangladeshi Sisters

Nari Diganta Calls Everybody to Join the Protest against Sexual Violence of Women

To condemn and call for action against the brutal sexual violence which were committed against 20 women in Dhaka during the celebration of Bangla New Year on Pohela Baisakh, a protest meeting has been arranged by Nari Diganta and Bangladesh Youth Union, UK.

When? Tuesday, 21 April, at 5.30pm.

Where? Altab Ali Park Shaheed Minar, Tower Hamlets, London E1 1, United Kingdom.

Please join us in the protest with your friends. Tell Bangladesh government to take action against the rapists. The perpetrators must be apprehended.

Please check out the facebook event page and indicate your joining here https://www.facebook.com/events/357725651099101/


1 Comment

Nari Diganta denounces the heinous act of sexual harassment of girls and young women in Dhaka

Bangladesh Government Must Take the Responsibility to Apprehend the Perpetrators

Rumana Hashem

In the evening of 14 April, during the celebration of Bangla New Year 1422, called Pohel Boishak, 20 young Bangali girls and women were attacked by a group of rapists who took possessions of women’s bodies by forcing them to be naked and lied down on the ground while rapists played with their bodies at the premise of the country’s largest public University in the capital city of Dhaka. While the act of violence against these women was just less what we call rape in the West, the ferocity of the sexual assault was beyond account. The outrageous act of sexual harassment of young women in public went on for about two hours, near the gate of Teachers and Students’ Centre (TSC) of Dhaka University and the Suhrawardy Udyan (the historical Suhrawardy Garden), known as a premise of the country’s progressive people. During the vicious incidence, a group of progressive students belonging to a left political student’s organisation, called the Bangladesh Students Union (BSU), had protested the incident and tried to stop the rapists. As an end result, they were badly beaten up and threatened to be killed by the rapists. The rapists broke an arm of one protester, Liton Nandi, a leading activist and key organiser of the Bangladesh Student’s Union.This outrageous occurrence is unacceptable.

Bangladeshi police and campus security guards were present in the premise during the atrocities. They have witnessed everything throughout the dramatic sexualised event. Police failed the nation and did not play the role of state security personnel. They played extremely controversial role by keeping silent and by watching the incidence as armless staff of the state. By keeping silence and acting as statues, cop gave shelter to the rapists. Further, the University administration and local government denied their responsibilities to prevent these appalling sexualised violence happen in the premise of Dhaka University. The Proctor of the University has made controversial statements and denied to have evidence of sexual assaults of women within the Dhaka University’s premise whereas CCTV footage shows there is plenty of evidence and it is quite possible to identify the perpetrators.

This is not the first time that Bangladeshis have witnessed such masculinity and brutality of sexualised violence against women in Bangladesh. Masculinity is pervasive in Bangladesh but government plays hopeless roles to prevent such violence, allowing renewed sexualised violence against women. In 2000, a young woman was gang raped and killed at Dhaka University premise during the celebration of a new year in the eve of millennium. The woman was raped in front of her boyfriend. Both her boy friend and the millennium had witnessed the gendering of a young woman’s body right in the eve of a new era. Her fault was that she went to celebrate millennium as many men.

The story repeated on Tuesday, and this time our sisters were assaulted at day light by rapists in a similar fashion that the millennium had witnessed. Bangladeshi women are being destined to pervasive masculinity of some men and cadres of the ruling party. There has been nation-wide outrage to the incidence of Pohel Boishak.

Protest against sexual violence in Dhaka 15 April 2015. Courtesy: Facebook Group of Bikhubdho Nari Samaj  via Thot Kata

Protest against sexual violence in Dhaka 15 April 2015. Courtesy: Facebook Group of Bikhubdho Nari Samaj via thot kata

Yesterday women’s right campaigners have demanded apposite punishment of the perpetrators in a protest under the banner of Bikhubdho Nari Samaj (the society of women agitators). In response to the protest and nation-wide condemnation by women’s rights campaigners, the Bangladesh High Court has ruled the case as a sexualised violence against women. The perpetrators must be apprehended.  Further protest to demand appropriate punishment of the perpetrators and to address the need for an appropriate law to punish the perpetrators, has been organised by Bangladesh Students Union which will be held on Friday, 17 April in Dhaka.

As Bangladeshi-born women’s rights campaigners, we stand in solidarity with the agitating protesters.  We pay respect to our assaulted sisters.  We express full support to the demands of Bikhubdho Nari Samaj and Bangladesh Students Union (BSU) in Dhaka.  #freewomen #respectforwomen #preventsexualisedviolence

Below is a Facebook note by Professor Gitiara Nasreen, a key organiser of yesterday’s protest and a leading left-feminist in Bangladesh. In her note, Nasreen provides some findings which she compiled from the discussion which was being held in the protest by Bikhubdho Nari Samaj on Wednesday, 15 April. We have reproduced the findings for our Bangla-speaking women’s rights campaigners in London.

যৌননিপীড়িত উৎসব।।
গীতিআরা নাসরিন

বাংলা সন ১৪২২ এর প্রথম দিনে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এবং সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের গেটের মধ্যবর্তী জায়গায় প্রায় এক-দেড় ঘন্টা জুড়ে যে দলবদ্ধ যৌন-নিপীড়ন চলতে থাকে, সে সম্পর্কে ২রা বৈশাখ বিকেল পাঁচটায় ‘বিক্ষুদ্ধ নারী সমাজ’ ব্যানারে আয়োজিত প্রতিবাদ/প্রতিরোধ সভা থেকে পাওয়া কিছু তথ্য।

১. একজন নয়, বিভিন্ন বয়সের একাধিক নারী যৌন-নিপীড়িত হ’ন।
২. তাদের সঙ্গে যে পুরুষ-সঙ্গীরা ছিলেন, তারাও নিপীড়কদের শারীরিক আক্রমণের শিকার হয়েছেন।
৩. বিশ/পঁচিশজনের কয়েকটি দলে দফায় দফায় বিভিন্ন নারীর ওপর এই নিগ্রহ চালানো হয়।
৪. দাঁড়িয়ে থাকা, হাঁটতে থাকা, রিকশায় বসা কিম্বা ধাক্কাধাক্কির ফলে মাটিতে পড়ে যাওয়া, সকল অবস্থাতেই নারীটিকে (সঙ্গী এবং একটি ক্ষেত্রে ৮ বছরের শিশুসহ) ঘিরে ফেলে নিপীড়ন চালানো হয়।
৫. যৌন-নিপীড়নের পদ্ধতি ছিল গায়ের কাপড় টানা/খোলা/ছিঁড়ে ফেলা এবং শরীরের বিভিন্ন অংশে নানাভাবে হাত ও মুখ দেওয়া অর্থাৎ খামচানো/আঁচড়ানো/কামড়ানো।
৬. রক্ষাকারীরা সংখ্যায় কম ছিলেন, তারাও প্রহৃত হ’ন। ছাত্র ইউনিয়নের লিটন নন্দীর হাত ভেঙ্গে গেছে। উপস্থিতরা অনেকেই (পুলিশসহ) সাহায্যে এগিয়ে আসেন নি এবং ভিডিও বা ফটো তুলে রাখায় ব্যস্ত ছিলেন।
৭. এসময় আক্রমণকারী এবং আরো অনেকেই প্রচন্ড শব্দে ভুভুজেলা বাজাচ্ছিল।
৮. সোহরাওয়ার্দী ফটকের পাশেই ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশ বুথ, এবং ঘটনাস্থলে কমপক্ষে দু’টি ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা ছিল।
৯. প্রতিরক্ষাকারীরা কয়েকজনকে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিলেও, তাদের সবাইকে পুলিশ ছেড়ে দেয়।
১০. পয়লা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার মধ্যে রাত দশটা পর্যন্ত যানবাহন বন্ধ থাকার কথা থাকলেও, দুপুর দুটোর পর থেকেই যান-বাহন চলাচল শুরু হয়।
১১. সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের টিএসসি মুখী গেটটি নববর্ষের দিন বন্ধ রাখার কথা, কিন্তু গেটটি সবসময়েই খোলা ছিল।

Another front-line Bangladeshi feminist and our friend, Nasrin Siraj, has written an analysis to the prevalence of sexual violence and masculinty in Bangladesh. The article was being published on ঠোঁটকাটা (Thot Kata -The Sharp Tongue), which has been reproduced below with permission of the editor of Thot Kata and the author of the article. 

“WE NEED RED CHILLI POWEDER TO PREVENT SEXUAL VIOLENCE  AGAINST WOMEN”

By Nasreen Siraj

যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে মরিচের গুঁড়ো

নাসরিন সিরাজ

“নয়-দশ বছরের মেয়েটির কাপড় ছেঁড়া, শরীরে মানুষের দাঁতের দাগ। কামড়ে মাংস থেতলে গিয়েছে…দৃষ্টিসীমায় ছিল বহু পুলিশ…ভুভুজেলার তিব্র চিৎকারের ফাঁকে শুনতে পেলাম আশপাশের লোকজন বলছে, ‘ভিডিও কর! এইটা ভিডিও কর!” উপরের বাক্যগুলো দিয়ে একজন প্রত্যক্ষদর্শী এবারের পয়লা বৈশাখে রমনায় ঘটে যাওয়া যৌন নিপীড়নের ঘটনা বর্ণনা করেছেন। ফেইসবুকে শেয়ার করেছেন খবরটা এক নাগরিক, সাংবাদিক। শাহবাগে বিক্ষুব্ধ নারী সমাজ প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। যৌন নিপীড়ন বিরোধী তৎপরতা প্রত্যক্ষ করছি আমরা। পাশাপাশি দেখছি কিছু গণমাধ্যমে যৌননিপীড়নের মত গুরুতর অপরাধকে শ্লীলতাহানী আখ্যা দিয়ে অপপ্রচার চলছে। তাদের সাথে যুক্ত হয়েছে পুলিশ প্রশাসনের “সিসিটিভি ক্যামেরা দিয়ে অপরাধী ধরবো” তামাশা।

আমার এক শিক্ষক পরামর্শ দিয়েছেন যৌন নিপীড়কদের বিরুদ্ধে নারীদের পুরোনো রক্ষাকবচ মরিচের গুঁড়ো এস্তেমাল করার জন্য। কথাটা প্রতীকি অর্থেও ব্যবহৃত হয়। যৌন নিপীড়নের মত গুরুতর অপরাধকে বিভ্রান্তিকর নামে ডেকে যারা তামাশা করছেন তাদের চোখের ঠুলি সারাতে আমাদের লেখাই মরিচের গুঁড়ো। তাই ২০১০ এ বুধবার নামক একটি সাপ্তাহিকে প্রকাশিত একটি পুরোনো লেখা ঠোঁটকাটায় আবার প্রকাশিত হল। এবারের ঘটনা ও তাকে ম্যানেজ করার জন্য প্রশাসন ও তার অপশক্তিগুলো যে কান্ডগুলো করছে তার সাথে পুরোনো ঘটনা ও ম্যানেজ প্রক্রিয়ার মিলগুলো ঝালিয়ে নিলে নারীমুক্তির লড়াই শক্তিশালী হবে বলেই আমরা আশা করছি।

যৌন নিপীড়নের পক্ষে/বিপক্ষের তৎপরতা পর্যবেক্ষণ, ২০১০

নাসরিন সিরাজ

২০০৯ সালের মে মাসে যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট থেকে একটি নির্দেশনা এসেছে। এই অর্জনের পর, ২০১০ এর শেষে এসে যৌন নিপীড়নের ঘটনাগুলো কিভাবে রাষ্ট্র , নীতি নির্ধারকরা ও গণমাধ্যম বিলি বন্টন করেছে সেটা বুঝবার চেষ্টা থেকে এই পর্যবেক্ষণ। জাতীয় পত্র-পত্রিকা, ইন্টারনেট প্রত্রিকা, ব্লগ কিংবা ফেসবুকে এ বছরে প্রকাশিত লেখালেখি থেকে দেখা যায় এ বছরও যৌন নিপীড়ন নিয়ে আলোচনা বেশ সরগরম ছিল। এই উত্তপ্ততা নির্দেশ করে যে ঘরের বাইরের পরিসরে নারীর অস্তীত্ব টিকিয়ে রাখার স্বার্থে যৌন নিপীড়ন বিরোধী এই নির্দেশনাকে আরও সম্প্রসারিত করার দরকার যেটা যৌন নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলনকে অব্যাহত রাখতেও সাহায্য করবে।

হাইকোর্টের নির্দেশনামা জারি হবার সাথে সাথে যৌন নিপীড়নের ঘটনা হ্রাস পাবে এরকম আশা যৌন নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলনের সাথে যারা দীর্ঘদিন যুক্ত আছেন তারা করেননি। বরং সমাজে বিদ্যমান লিঙ্গীয় বৈষম্য দূর করতে যৌন নিপীড়ন বিরোধী ব্যপক প্রচার প্রচারণা চালিয়ে জনসচেতনতা তৈরীই ছিল সংশ্লিষ্টদের পরবর্তী লক্ষ্য। হাইকোর্টও সেরকম নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু দেখা গেল এ বছরটা ঠিক বিপরীত কাজটাই হল।

প্রথমত: যে ভয়াবহ কাজটি হল সেটি সরকার নিজেই করেছে আর তা হল “ঈভ টীজিং” শব্দটিকে আস্তাকুঁড়ে থেকে উদ্ধার এবং সমাজের দৈনন্দিন বাতচিতের মধ্যে এই হালকা শব্দটির পুনর্বহাল। নৃবিজ্ঞানী রেহনুমা আহমেদ তার লেখায় (eve teasing: of semantic shifts and criminal cover ups, 15.11.2010. New Age) এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। তিনি এ বছরের বিভিন্ন সময়ে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো উল্লেখ ও বিশ্লেষণ করে যুক্তি দেন যে মূলত: আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের কর্মী বা ক্যাডারদের যৌন সন্ত্রাস ঢাকা দিতে এবং তাদের শাস্তির হাত থেকে রক্ষা করতে এটা করা হয়েছে। তিনি আরও যুক্তি দেন যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রোভার স্কাউটদের সাথে নিয়ে “ঈভ টীজিংকে না বলুন” প্রচারণা শুরু করে এবং জুনের ১৩ তারিখকে “ঈভ টিজিং প্রতিরোধ দিবস” হিসেবে ঘোষণা দিয়ে যৌন নিপীড়নকে হাল্কাকরণ প্রক্রিয়ায় বাতাস দেন। একই লেখক (Thou spoke with a man’s tongue , Mananiya Prime Minister!, 13.12.2010. New Age) রোকেয়া পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের বিশ্লেষণ করে বলেন যে প্রধানমন্ত্রী নারী হলেও প্রকৃতপক্ষে তিনি পুরুষের ভাষাতেই কথা বলছেন। আপাত: দৃষ্টিতে আওয়ামী লীগের “শত্রু” হিসেবে চিহ্নিত জামায়াত-ই-ইসলামীর প্রধানের নারী বিদ্বেষী অবস্থানকেও প্রধানমন্ত্রী সমর্থন করছেন। উল্লেখ্য “ঈভ টীজিং” এর কারণ প্রসঙ্গে জামায়াত প্রধান মতিউর রহমান নিজামী বলেছেন মেয়েরা রাতে বের হয় বলেই এই ঘটনাগুলো ঘটে। একই প্রসঙ্গে কক্সবাজার জেলা ইসলামী ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইয়াসীন হাবিব বলেছেন, “ঈভ টীজিং” না থাকলে পৃথিবীর সব পুরুষ হিজড়া হয়ে যাবে। ঈভ টীজিং না থাকলে দেশে অরজাকতা সৃষ্টি হবে। অনেক মহিলা হালকা কাপড় পরে বের হয় পুরুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য। তারা নিজেদের কারণে “ঈভ টীজিং” এর শিকার হচ্ছেন।” (সূত্র: আমাদের সময়)। প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার “মেয়েদেরও শালীন ভাবে চলা উচিত” এই বক্তব্যের সমালোচনা করে রেহনুমা প্রশ্ন করেন- দেশের বড়লোক সমাজের মেয়েরা কি পোশাক পরে না পরে বা যৌন স্বাধীনতার নামে কি ফ্যান্টাসীতে ভোগে না ভোগে সেই প্রসঙ্গ টেনে এনে সাধারণ, কর্মঠ মেয়েদের (প্রকৃতপক্ষে যাদেরকে রাস্তাঘাটে দেখা যায়) প্রাত্যহিক সমস্যাকে কেন তরল করা হচ্ছে, যখন আমরা জানি যে যৌন নিপীড়নের কারণে মৃত্যুর (আত্মহত্যা, খুন) ঘটনা অগুনতি এবং স্কুল ছেড়ে দেয়ার হার উচ্চ?

এ বছরই আমরা দেখতে পেয়েছি সরকারের অপারেশন রোমিও হান্ট নামে র্যা ব প্রকল্প এবং কিশোরদের গলায় “বখাটে” সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে ছবি তুলে পত্রিকায় প্রকাশ। এ বছর মোবাইল কোর্ট বসিয়ে “বখাটেদের” “ঈভ টীজিং” করার দোষে শাস্তিও দেয়া হয়েছে। কিন্তু সরকার নিজেই যেহেতু বিভ্রান্ত আর পক্ষপাতদুষ্ট তাই এই উদ্যোগগুলো নিয়ে প্রশ্ন তোলাটা গুরুত্বপূর্ণ। সাংবাদিক শামীমা বিনতে রহমান তার লেখায় (ইভটিজিংয়ের বিস্তার ও মিজানুর রহমানের প্রতিবাদের খেসারত, ২২.১০.২০১০, bdnews24.com) তুলে ধরেন কিভাবে নারীদের পাশাপাশি পুরুষরাও সরকারের এই তরলীকরণ প্রক্রিয়ায় জীবন দিচ্ছেন। তিনি লেখেন যে মিজানুর যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ করতে গিয়ে যখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছিল তখন স্থানীয় মানুষের সংগবদ্ধ উদ্যোগে (পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় তারা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিল) একজন আসামীকে স্থানীয় এক আইনজীবির বাসা থেকে পাকড়াও করা হয়। এই ঘটনাগুলো প্রমাণ করে যৌন নিপীড়নের আসামীদের রক্ষার ব্যপারে স্থানীয় রাজনৈতিক ক্ষমতাও কার্যকর ভূমিকা পালন করছে। তিনি বলেন, “ নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার লোকমানপুর কলেজের রসায়ন বিভাগের ৩৬ বছর বয়সী শিক্ষক মিজানুর রহমানের ঘটনা কেবল যৌন উৎপীড়ক, পুরুষালী মানসিকতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের দৃষ্টান্তই নয়, ইভটিজিংকে হাল্কাভাবে নেয়ার সরকারী সিদ্ধান্তের অসারতা উন্মোচনেরও দৃষ্টান্ত।”

এবারে আসি যৌন নিপীড়ন বিরোধী তৎপরতায়। যৌন নিপীড়ন বিরোধী নীতিমালা বাস্তবায়নের সমস্যা নিয়ে বরাবরের মত এ বছরও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সোচ্চার ছিল। জুন মাসে হাইকোর্ট বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য ও রেজিস্টারকে যৌন নিপীড়ন বিরোধী নির্দেশ মালায় নির্দিষ্ট করা গাইডলাইন লংঘন করার কারণে শমন জারি করে। সূত্র : Press Release: High Court Orders Vice Chancellor and Register in Charge of Jahangirnagar University to Show Cause Re Contempt for Disclosing Identity of Complainant. date : 3.6.2010. link : http://solidarityworkshop.wordpress.com/2010/06/03/pr-hc-ju-contempt/) উল্লেখ্য, হাইকোর্টের নির্দেশের অনুচ্ছেদ ৮(ক) এবং ১০ (৩) অনুযায়ী অভিযোগ প্রমাণের আগ পর্যন্ত অভিযোগকারী ও অভিযুক্তের পরিচয় গোপন রাখার কথা বলা আছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্তৃপক্ষ সেটি লংঘন করে তদন্ত প্রক্রিয়াধীন একটি যৌন নিপীড়নের ঘটনার অভিযোগকারী শিক্ষিকার নাম বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় (২৭ এপ্রিল) বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রকাশ করে।

২৭ নভেম্বর নিপীড়নের বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর একটি গোলটেবিল আলোচনা করে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে। বিশ্ববিদ্যালয়টির সরকার ও রাজনীতি বিভাগের শিক্ষক নাসিম আখতার হোসেইনের আহবানে সেখানে উপস্থিত হন সাংবাদিক এবং যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে সক্রিয় শিক্ষক, প্রাক্তন ছাত্রী-ছাত্র ও বিভিন্ন নারী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। বিশ্ববিদ্যালয়টির ১৮ বছরের (দেখুন ধর্ষণ বিরোধী ছাত্রী আন্দোলন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ’৯৮ তে সংগঠিত আন্দোলন নিয়ে প্রকাশনা সংকলন, অশুচি, ১৯৯৯) যৌন নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলন সংগঠন ও যৌন নিপীড়ন বিরোধী নীতিমালা প্রণয়নে সক্রিয় অংশগ্রহনের অভিজ্ঞতার আলোকে ঐ গোল-টেবিলে আলোচনা করা হয়। যেমন: যৌন নিপীড়কদের শাস্তি প্রদানের সফলতা (বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চাকুরিচ্যুত করা গেছে বা পদাবনতি করা গেছে কিন্তু রাষ্ট্রের সাধারণ আইনের কাছে তাদের সোপর্দ করা যায়নি) থেকে দেখা গেছে যে “আইন তাদেরই ধরে যাদের ক্ষমতা নেই। যখন অপরাধীর সাথে ক্ষমতার সাথে, রাজনৈতিক দলের সাথে, শিক্ষকদের ভোটের রাজনীতির সাথে সম্পর্ক থাকে তখন তাকে আর শাস্তি দেয়া হচ্ছে না ( বক্তা: নাসিম আখতার হোসেইন)। তিনি আরও বলেন যে হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এটা নিয়ে সক্রিয় হবার কথা কিন্তু কেবল মাত্র জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুটা কাজ হচ্ছে। এই সফলতায়ও খুশী হওয়া যাচ্ছে না কারণ আইন সেখানে কার্যকর হচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক আনু মুহাম্মদ যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধে সরকারের এ বছরের কার্যকলাপকে অস্থায়ী সমাধান হিসেবে আখ্যায়িত করে স্থায়ী সমাধানের জন্য কি করা যেতে পারে সেটা আলোচনা করার জন্য গোলটেবিল বৈঠকটি সঞ্চালন করেন। আলোচনায় উঠে আসে যে হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিযোগ সেল গঠন করা হচ্ছে ঠিকই কিন্তু এই সেলের সদস্য তারাই হচ্ছে যারা প্রশাসনের সাথে যুক্ত বা অনুগত ব্যক্তি। ফলে অভিযুক্ত ব্যক্তির বদলে অভিযোগকারীর দোষ নিয়ে তারা বেশী আগ্রহী। নারীর জন্য সুবিচার নিশ্চিত করতে অভিযোগ সেলে শুধু নারী সদস্যের অন্তর্ভুক্তিই যথেষ্ট নয়। কারণ তারাও এই ব্যবস্থার বাইরে কাজ করে না। যেমন এ বছরে আলোচিত আব্দুল্লাহ হেল কাফী কেইসের তদন্ত রিপোর্টে অভিযোগকারীর সমস্যা হিসেবে উল্লেখ আছে যে তার ব্যক্তিত্বের সমস্যা আছে, সে অস্থির মতি, চঞ্চল প্রকৃতির এবং তার দ্রুত ধৈর্য স্খলন ঘটে। এই “অপরাধগুলো”র কারণে অভিযোগকারী শিক্ষিকারও চাকুরিতে পদাবনতি ঘটে। দেখা গেছে যৌন নিপীড়নকে চিহ্নিত না করে সেটাকে “অসদাচরন” আখ্যা দিয়ে বিষয়টিকে হালকা করা হয়। যেমন একই তদন্ত রিপোর্টে বলা হয়েছে অভিযোগকারী অভিযোগ “বাড়াবাড়ি”। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কাবেরী গায়েন বলেন, “অসৎ চরিত্র ও অদক্ষতা যে যৌন নিপীড়ন থেকে আলাদা বিষয় এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনকে বুঝতে হবে”। “যৌন নিপীড়নের শক্ত প্রমাণ নেই” যুক্তি দিয়ে অনেক মামলা খারিজ করা হয় প্রসঙ্গে বিচারপতি গোলাম রাব্বানী নারী নির্যাতনের স্বাক্ষী নিজেই, অর্থাৎ তাকে ইনজুরড ইউটনেস হিসেবে ধরতে হবে এই সুযোগ আমাদের দেশের আইনেই আছে এবং সেটার চর্চা তিনি নিজেও করেছেন (তিনি আরও দেখতে বলেন BLD 16, Vol 230)

২০০০ দশকের শুরুটা হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলন চত্বরে মিলেনিয়াম উৎসবে দুই শতাধিক তরুনের দ্বারা একজন নারীকে বিবস্ত্র করার মাধ্যমে। এই বছরের শুরুটা হয়েছে জন সমক্ষে যৌন নিপীড়ন করায় পিংকির আত্মহত্যার খবর দিয়ে। ২০১০ এর পহেলা বৈশাখ উদযাপন হয়েছে ছাত্রলীগের কর্মীদের দ্বারা কনসার্টে মেয়েদের শরীরে সংগবদ্ধ যৌনজ আক্রমন করে। নতুন বছর শুরু করতে যাচ্ছি আমরা। শুরু করতে যাচ্ছি একবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় দশক। যৌন নিপীড়নের মত জটিল একটি বিষয় সরলীকরণ করার প্রকিয়া বন্ধ হোক সেই আশাই করি। আর নারীদের এগিয়ে যাওয়ার, ঘরের বাইরে বেরিয়ে আসার যে ধারাবাহিক আন্দোলন চলছে সেটা আরও শক্তিশালী হোক সেটা দেখার প্রত্যাশা করি। “পুরুষেরা – যাহারা নানা প্রকার দুষ্টামি করে, বা করিতে সক্ষম, তাহারা দিব্য স্বাধীনতা ভোগ করে, আর নিরীহ কোমলাঙ্গী অবলারা বন্দী থাকে! অশিক্ষিত অমার্জিত-রুচি পুরুষেরা বিনা শৃংখলে থাকিবার উপযুক্ত নহে। আপনারা কিরূপে তাহাদিগকে মুক্তি দিয়া নিশ্চিন্ত থাকেন?” – ১৯০৫ সালে সুলতানার স্বপ্নে বেগম রোকেয়া যে প্রশ্ন করে আমাদের বিব্রত করে রেখেছেন তার অবসান হোক।

ফুটনোট:
যৌন নিপীড়ন বলতে যে বিষয়গুলোকে হাইকোর্টের নির্দেশনামায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে সেগুলো হল:
a. Unwelcome sexually determined behaviour (whether directly or by implication) as physical contact and advances;
b. Attempts or efforts to establish physical relation having sexual implication by abuse of administrative, authoritative or professional powers;
c. Sexually coloured verbal representation;
d. Demand or request for sexual favours;
e. Showing pornography;
f. Sexually coloured remark or gesture;
g. Indecent gesture, teasing through abusive language, stalking, joking having sexual implication.
h. Insult through letters, telephone calls, cell phone calls, SMS, pottering, notice, cartoon, writing on bench, chair, table, notice boards, walls of office, factory, classroom, washroom having sexual implication.
i. Taking still or video photographs for the purpose of blackmailing and character assassination;
j. Preventing participation in sports, cultural, organizational and academic activities on the ground of sex and/or for the purpose of sexual harassment;
k. Making love proposal and exerting pressure or posing threats in case of refusal to love proposal;
l. Attempt to establish sexual relation by intimidation, deception or false assurance.
(http://www.dpiap.org/resources/article.php?id=0000194&year=&genreid=05, লিংকটি সর্বশেষ দেখা হয়েছে ২৭/১২/২০১০ তারিখে)